রবি. ডিসে ৪, ২০২২

ইন্দোনেশিয়ায় শীর্ষ ইসলামপন্থী নেতা গ্রেপ্তার, পুলিশের গুলিতে নিহত ৬ নেতাকর্মী

কট্টোরপন্থী ইসলাম প্রচারক রিজিক শিহাবকে করোনাভাইরাস মহামারীর মধ্যে ধর্মীয় সভা করায় গ্রেপ্তার করেছে ইন্দোনেশিয়ার পুলিশ। তাকে গ্রেপ্তারের আগে গত সপ্তাহে তার দল ইসলামিক ডিফেন্ডার্স ফ্রন্টের ৬ নেতাকর্মীকে গুলি করে হত্যা করে পুলিশ। পুলিশের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে, রিজিক শিহাবের বিরুদ্ধে অভিযোগের তদন্তকালে তারা হঠাত করে অনিরাপদ বোধ করলে তার সমর্থকদের ওপর গুলি করতে বাধ্য হয় পুলিশ। এর আগে এই ধর্মীয় নেতা দীর্ঘদিন নির্বাসনে ছিলেন। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ, গতমাসে নির্বাসন থেকে ফিরে তিনি একাধিক ধর্মীয় সমাবেশ করেন। এতে করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে দেশের মানুষকে আরো হুমকির মুখে ঠেলে দেয়া হয়েছে বলে অভিযোগপত্রে উল্লেখ করা হয়েছে। এ খবর দিয়েছে সংবাদ সংস্থা রয়টার্স।
এই ধর্মীয় নেতা ইন্দোনেশিয়ার সবথেকে প্রভাবশালী ইসলামপন্থী নেতাদের একজন। ধর্মীয় গুরু হলেও রাজনৈতিক নানা ইস্যুতে তিনি ও তার অনুসারিরা বিভিন্ন সময়ে উত্তেজনা সৃষ্টি করে থাকে।

রয়টার্স জানিয়েছে, এর ফলে বর্তমান প্রেসিডেন্ট জোকো উইডোডোর প্রশাসনের সঙ্গে তার সরাসরি দ্বন্দ্বের জন্ম হয়েছে। ইন্দোনেশিয়ায় বিশ্বের সবথেকে বড় মুসলিম জনসংখ্যার আবাস হলেও দেশটিতে ধর্মনিরপেক্ষ আদর্শ অধিক জনপ্রিয়।

তাকে সারাদিন ব্যাপী জিজ্ঞাসাবাদ করার পর তাকে আটকে রেখেছে পুলিশ। তাকে আরো ২০ দিন আটকে রেখে প্রশ্ন করা হবে বলে জানিয়েছে পুলিশের মুখপাত্র আরগো উয়োনো। বিচারে দোষী প্রমাণিত হলে তার দীর্ঘ কারাবাস হতে পারে। তবে এই ধর্মীয় নেতা দেশের জন্য ভয়ংকর বলে উল্লেখ করেছে পুলিশ।

এ নিয়ে ইন্দোনেশিয়ার আইনমন্ত্রী মাহফুদ মোহাম্মদ বলেন, এ ধরণের প্রভাবশালী ব্যক্তিদেরও আইনের আওতায় নিয়ে আসা জরুরি। ইন্দোনেশিয়ায় ইসলাম অবমাননার অভিযোগ তুলে বিভিন্ন সময় উত্তেজনা সৃষ্টি করেছে তার দল। তবে ২০১৭ সালে পর্নোগ্রাফিক মেসেজ পাঠানোর অভিযোগে ধর্মীয় নেতা রিজিকের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে পুলিশ। মামলা থেকে বাচতে সে বছরই দেশ ছেড়ে পালিয়ে যান তিনি।

Developed by - Web Nest Ltd.

Helpline - +88 01719305766