বুধ. আগ ১৭, ২০২২

২০২১ সালে টিকা পাবে না দরিদ্ররা!

নিম্ন আয়ের প্রতি ১০টি দেশের ৯টি-তেই পাওয়া যাবে না করোনার টিকা। অপেক্ষা করতে হবে অন্তত ২০২২ সাল পর্যন্ত। ২০২১ সালে পশ্চিমা দেশগুলোতে ব্যাপকহারে টিকা আমদানির কারণে বঞ্চিত হতে পারে অপেক্ষাকৃত গরীব দেশগুলো। এরই মধ্যে ধনী রাষ্ট্রগুলোর জন্য মোট উৎপাদিত কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনের ৫৩ ভাগই বরাদ্দ করা হয়েছে। ফলে প্রায় ৭০টি দেশের অসংখ্য মানুষ এই স্বাস্থ্যসেবা থেকে বঞ্চিত হতে পারে বলে আশঙ্কা জানিয়েছে মানবাধিকার ও জনস্বাস্থ্য সংক্রান্ত আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলো।

যুক্তরাজ্য বিশ্বে প্রথম করোনা টিকা কার্যক্রম শুরুর পরই এমন আশঙ্কাজনক তথ্য প্রকাশ করলো ব্রিটিশ গণমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ান। আন্তর্জাতিক স্বাস্থ্যসংস্থা পিপলস ভ্যাকসিন অ্যালায়েন্স বলছে, পৃথিবীর মোট জনসংখ্যার মাত্র ১৪ ভাগ ধনী দেশগুলোতে বসবাস করছে। কিন্তু তাদের জন্যেই বরাদ্দ হয়েছে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের প্রস্তাবিত ভ্যাকসিনের ৫৩ ভাগ সরবরাহ। এমনকি দেশের মোট জনসংখ্যার চেয়েও বেশি করোনা টিকা মজুদ করতে যাচ্ছে কানাডা। অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল, ফ্রন্টলাইন এইডস, গ্লোবাল জাস্টিস নাউ আর অক্সফামের মতো আন্তর্জাতিক সংস্থার কাছে তথ্য আছে যে, কানাডা যে পরিমাণ ভ্যাকসিন কেনার পরিকল্পনা করেছে তাতে করে একজন নাগরিক অন্তত ৫ বার টিকা নিতে পারবে।

যুক্তরাজ্যে প্রথম কোভিড-১৯ টিকা নিচ্ছেন মার্গারেট কিনান

এদিকে গরীবদের প্রতি ধনীদের এমন বৈষম্যের প্রতিবাদ জানিয়ে মন্তব্য করেছে বিভিন্ন সংস্থার প্রতিনিধিরা। অক্সফামের স্বাস্থ্যনীতি নির্ধারক-ম্যানেজার অ্যানা ম্যারিয়ট বলেন,
“জীবন রক্ষাকারী প্রতিষেধকের ওপর সবারই সমান অধিকার থাকা উচিত। অথচ পরিস্থিতি এমন যে, গরীব দেশগুলোর টিকা কেনার মতো অর্থ নেই। ফলে বিশ্বের কোটি কোটি মানুষ দীর্ঘদিন এই ভ্যাকসিন থেকে বঞ্চিত হবে।”

এরই মধ্যে সবচেয়ে কার্যকর ভ্যাকসিন ফাইজার-বায়োএনটেকের ৯৬ ভাগ সরবরাহ কিনে নিয়েছে পশ্চিমা বিশ্ব। এর বিকল্প মডার্না ভ্যাকসিনও উৎপাদিত হচ্ছে ধনী দেশগুলোতে সরবরাহ করার জন্য। এসব ভ্যাকসিন সংরক্ষণের জন্য যে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা প্রয়োজন সেটি নিশ্চিত করার মতো প্রযুক্তিও নেই মধ্যম থেকে নিম্ন আয়ের দেশগুলোতে।

শুধুমাত্র যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটির ভ্যাকসিনটি স্বল্প আয়ের দেশগুলোর ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে আছে। যদিও এর কার্যকারিতা ৭০ ভাগ। ২০২১ সালে কেবল অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিন কিনতে পারবে বিশ্বের শতকরা ১৮ ভাগ মানুষ। অথচ যেসব প্রস্তাবিত টিকা ৯০ ভাগের বেশি কার্যকার সেগুলোর মূল্য এবং সরবরাহের পরিকল্পনা কেবল ধনী দেশগুলোর উপযোগী।

এমন পরিস্থিতিতে কোভিড-১৯-এর ভ্যাকসিন সবার জন্য সহজলভ্য করতে কিংবা ভ্যাকসিন তৈরির প্রযুক্তি সবার ব্যবহারের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে মানবাধিকার সংস্থাগুলো।

Developed by - Web Nest Ltd.

Helpline - +88 01719305766