ক্রিকেট

‘লর্ডসে ভারতের লজ্জা’

ভারতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়ক বিরাট কোহলির সেই পুরোনো পিঠের ব্যথা এখনও ভোগাচ্ছে। মনের ব্যথা হয়তো আরও বেশি, এ দুই ব্যথায় কোহলি যখন দু’চোখে অন্ধকার দেখছেন, ঠিক তখন ইংল্যান্ড দলের অধিনায়ক জো রুটের চোখে টেস্ট সিরিজে ৫-০ ব্যবধানে জয়ের স্বপ্ন।
লর্ডস টেস্টে ভরাডুবির পর কোহলির ভারতের দিকে ধেয়ে আসছে সমালোচনার সুনামি। বিপরীতে ইনিংস ও ১৫৯ রানের বিশাল জয়ে প্রশংসার বৃষ্টিতে ভিজছে রুটের ইংল্যান্ড।

এজবাস্টনে পাঁচ ম্যাচ সিরিজের প্রথম টেস্টেও হেরেছিল ভারত। সেই হারে গ্লানি ছিল না। কিন্তু লর্ডস একেবারে পথে বসিয়ে দিয়েছে টেস্ট র‌্যাংকিংয়ের এক নম্বর দলটিকে।

সময়ের সেরা ব্যাটসম্যান কোহলির নেতৃত্বে এর আগে কখনই ইনিংস হারের লজ্জায় পড়তে হয়নি ভারতকে। বিশ্বের অন্যতম সেরা ব্যাটিং লাইনআপ নিয়ে ক্রিকেট-তীর্থে কোহলিদের এমন অসহায় আত্মসমর্পণে হতবাক ভারতীয় মিডিয়া।

হিন্দুস্থান টাইমসের শিরোনাম, ‘ব্যাটসম্যানদের আত্মসমর্পণে লর্ডসে ভারতের লজ্জা।’ ভারতের সাবেক ব্যাটসম্যান ভিভিএস লক্ষণ টুইটারে লেখেন, বিচক্ষণতার অভাবে বৈরী কন্ডিশনে ধরা খেয়ে ভারতের এই প্রতিরোধহীন পরাজয়।

ভারতজুড়ে এমন হাহাকার ও ক্ষোভের বিস্ফোরণের যৌক্তিক কারণ আছে। বৃষ্টিবিঘ্নিত লর্ডস টেস্টে সাকুল্যে খেলা হয়েছে ১৭০.৩ ওভার। বলের হিসাবে তাই কার্যত দু’দিনেই হেরেছে ভারত। প্রথম ইনিংসে ১০৭ রানে গুটিয়ে যাওয়ার পর দ্বিতীয় ইনিংসে ১৩০ রানে অলআউট।

দুই ইনিংসের সম্মিলিত দৈর্ঘ্য ৮২.২ ওভার। যেখানে ইংল্যান্ড তাদের একমাত্র ইনিংসেই ৮৮.১ ওভার ব্যাট করেছে। তা-ও অলআউট হয়নি। তাই শুধু বৈরী কন্ডিশনের কাঁধে সব দায় চাপানোর কোনো সুযোগ নেই ভারতের।

আসলে সুইং বোলিংয়ের আদর্শ কন্ডিশনে জেমস অ্যান্ডারসনের কোনো জবাবই ছিল না ভারতীয় ব্যাটিং লাইনআপের কাছে। দুই ইনিংস মিলিয়ে মাত্র ৪৩ রানে নয় উইকেট নিয়েছেন অ্যান্ডারসন। প্রথম বোলার হিসেবে ছুঁয়েছেন লর্ডসে ১০০ টেস্ট উইকেটের মাইলফলক। তাকে দারুণ সঙ্গ দিয়েছেন স্টুয়ার্ট ব্রড ও ক্রিস ওকস।

ইংলিশ পেসাররা যতটা দুর্দান্ত ছিলেন, ভারতের ব্যাটসম্যানরা ততটাই বিবর্ণ। দুই ইনিংসেই ভারতের সর্বো”চ স্কোরার আটে নামা রবিচন্দ্রন অশ্বিন। মূল ব্যাটসম্যানদের সবাই ডাহা ফেল করায় কোনো অজুহাত না দেখিয়ে কোহলি সরাসরিই বলেছেন, এমন হারই প্রাপ্য ছিল ভারতের।

তবে ভারত বিনা লড়াইয়ে হার মেনেছে, মানতে নারাজ ইংল্যান্ড অধিনায়ক জো রুট, আমি তাদের চেষ্টা বা লড়াইয়ে কোনো কমতি দেখিনি। নিজেদের সাধ্য অনুযায়ী সব কিছুই করেছে ভারত। কিন্তু আমরা তাদের কোনো সুযোগই দিইনি। এভাবে খেলতে পারলে ৫-০তে জেতার স্বপ্ন দেখাই যায়। তবে স্বপ্ন আর বস্তবতা এক জিনিস নয়। কিছুতেই আত্মতুষ্ট ও উদ্ধত হওয়া যাবে না।

আগামী শনিবার ট্রেন্টব্রিজে শুরু হবে তৃতীয় টেস্ট।

Jugantor

Show More
W3 Techniques

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close